ঢাকা,  রবিবার,  জুলাই ২২, ২০১৮ | ৭ শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
For problem seeing Bangla click here
সদ্য খবর
English

জ্বালানিখাতে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা করা জরুরি

ইবি প্রতিবেদক

জ্বালানি নিশ্চিত করা না গেলে দেশের শিল্প খাত ক্ষতিগ্রস্ত হবে। অনিশ্চিত হয়ে পড়বে বিনিয়োগ। অর্থনীতি তথা খাদ্য নিরাপত্তার ওপরও বিরূপ প্রভাব পড়বে। জ্বালানি চাহিদা ও উৎপাদনের মধ্যে ঘাটতি পুরণ করতে হলে আমদানির বিকল্প নেই। বিদ্যুৎ, সার, শিল্পে অদক্ষ যন্ত্রপাতির কারণে জ্বালানির অপচয় হচ্ছে। দক্ষ যন্ত্রপাতি ব্যবহার করে জ্বালানি সাশ্রয় করা জরুরী।
আজ শনিবার ঢাকায় আন্তর্জাতিক কনভেনশন সিটি, বসন্ধুরায় অনুষ্ঠিত সেমিনারের মূল প্রবন্ধে একথা বলা হয়। প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের কেমিক্যাল বিভাগের অধ্যাপক ড. ইজাজ হোসেন মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।
DSC01107
সেমস গ্লোবাল ও এনার্জি বাংলা যৌথভাবে ‘প্রাথমিক জ্বালানি ও বিদ্যুৎ: দিক নিদের্শনা চায় উদ্যোক্তা‘ শীর্ষক এই সেমিনারের আয়োজন করা হয়েছে।
সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত আছেন বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। প্যানেল আলোচক হিসেবে আছেন তত্ত¡াবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টার বিশেষ সহকারি ও প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ম. তামিম, এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের (বিইআরসি) সদস্য সেলিম মাহমুদ, বাংলাদেশ-ভারত ফ্রেন্ডশিপ পাওয়ার কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইউ কে ভট্টাচার্য, জ্বালানি বিশেষজ্ঞ শামসুল আলম, জ্বালানি বিশেষজ্ঞ ও পেট্রোবাংলার সাবেক পরিচালক মকবুল ই এলাহী উপস্থিত ছিলেন। এতে বক্তব্য দেন সেমস গ্লোবালের প্রেসিডেন্ট মেহেরুন এন ইসলাম। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন ‘এনার্জি বাংলা’ এর সম্পাদক রফিকুল বাসার। ছবি একে সভার উদ্বোধন করেন প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ।

DSC01111

মূল প্রবন্ধে বলা হয়, বর্তমানে দেশের বেশিরভাগ বিদ্যুৎকেন্দ্র, সার কারখানা, শিল্প কারখানা জ্বালানি ব্যবহারের ক্ষেত্রে অদক্ষ। এই ক্ষেত্রে দক্ষতা অর্জন করা গেলে জ্বালানি সাশ্রয় করা যাবে। গত কয়েকবছরে নতুন করে কোনো গ্যাসের সন্ধান পাওয়া যায়নি। বর্তমানে যে মজুদ আছে তা দিয়ে ৫০ শতাংশ চাহিদা পুরণ করা হচ্ছে। তিনি বলেন, জ্বালানির চাহিদা ও উৎপাদনের মধ্যে ঘাটতি পুরণ করতে বিকল্প জ্বালানি আমদানি করতে হবে।

DSC01110

তরল প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) আমদানি করে শিল্পে গ্যাসের চাহিদা পুরণ করা যায়, কয়লা ও তেলভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করে বিদ্যুৎ উৎপাদনে বিকল্প জ্বালানির ব্যবহার বাড়ানো সম্ভব। অন্যদিকে আবাসিকে পাইপলাইনে গ্যাসের পরিবর্তে এলপিজি ব্যবহার করতে হবে। এক্ষেত্রে এলপিজির দাম নির্ধারণ ও চাহিদা অনুযায়ি সরবরাহ করা জরুরী।

এখানে মন্তব্য করুন

আপনার ইমেইল জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না

*

You can use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>