ঢাকা,  মঙ্গলবার,  এপ্রিল ২৩, ২০১৯ | ১০ বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
For problem seeing Bangla click here
সদ্য খবর
English

বর্তমান সরকারের সময়ে ২ কোটি নতুন বিদ্যুৎ সংযোগ

ইবি প্রতিবেদক

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, বর্তমান সরকারের দুই মেয়াদে বিদ্যুতের দুই কোটি ১৭ লাখ নতুন সংযোগ দেয়া হয়েছে। এর মাধ্যমে মোট গ্রাহক তিন কোটি ২৫ লাখে উন্নীত হয়েছে।
সোমবার জাতীয় সংসদে ঝালকাঠি-১ আসনের সংসদ সদস্য বজলুল হক হারুনের প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী এ তথ্য জানান।
প্রশ্নোত্তরের আগে বিকেল সাড়ে চারটার দিকে ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়ার সভাপতিত্বে সংসদের অধিবেশন শুরু হয়।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, এরই মধ্যে দেশের ৯৩ ভাগ এলাকায় শতভাগ বিদ্যুতায়ন হয়েছে।বেশকিছু এলাকায় বিদ্যুতায়নের পরিমাণ ৮০ থেকে ৯০ শতাংশ। আশা করি, এ বছরের শেষ নাগাদ এসব এলাকাতেও বিদ্যুতায়নের কাজ শেষ করতে পারব। জাতীয় গ্রিডের ৭০, ৮০ বা ১০০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এলাকাগুলোকে অফ গ্রিড এলাকা হিসেবে বিবেচনা করা হয়। সেসব দুর্গম এলাকায় কিভাবে বিদ্যুৎ পৌঁছানো যায়, সে লক্ষ্য নিয়ে কাজ চলছে। এর সুফল পাওয়া যাচ্ছে। স্বর্ণদ্বীপে সমুদ্রের তলদেশ দিয়ে ১৪ কিলোমিটার পার করে বিদ্যুতায়ন করা হয়েছে, এতে প্রায় দুই লাখ ৫০ হাজার গ্রাহককে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়া গেছে।

চট্টগ্রাম-৪ আসনের সদস্য দিদারুল আলমের প্রশ্নের জবাবে নসরুল হামিদ বলেন, পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের আওতাধীন ৮৪ হাজার ৫৬৩টা গ্রামের মধ্যে ৭০ হাজার ১২০টাতে সম্পূর্ণ এবয় নয় হাজার ৮১৮টাতে আংশিকভাবে বিদ্যুতায়ন হয়েছে। ৪ হাজার ৬২৫টা গ্রাম বিদ্যুতায়িত হয়নি।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে দেশে চার লাখ ৯৫ হাজার কিলোমিটার বিদ্যুৎ সরবরাহ লাইন আছে। এর মধ্যে বর্তমান সরকারের দুই মেয়াদে দুই লাখ ৩৫ হাজার কিলোমিটার লাইন নির্মাণ হয়েছে। বিদ্যুতে সিস্টেম লস ১৬ দশমিক ৮৫ শতাংশ থেকে কমে ১১ দশমিক ৮৫ শতাংশ হয়েছে।
সংসদ সদস্য পঞ্চানন বিশ্বাসের সম্পূরক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে দেশের সব উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুৎ পৌছানো সম্ভব হবে।
তিনি এ কথা বলেন।
সরকারি দলের আরেক সদস্য ইসরাফিল আলমের আরেক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, দেশে এলপিজি (তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস) উৎপাদন হয় না, বোতলজাত করা হয়। দেশে এখন পর্যন্ত ৩০ লাখ টন এলপিজি প্রয়োজন। এজন্য বেসরকারি খাতকে অনুমোদন দেয়া হয়েছে । এ পর্যন্ত ৫৫টা কোম্পনিকে লাইসেন্স দেয়া হয়েছে। লাইসেন্স দেয়ার প্রক্রিয়া চলমান। যারাই আসছে, লাইসেন্স দেয়া হচ্ছে । এরই মধ্যে ছয়টা কোম্পানি প্রাথমিক ও চূড়ান্ত অনুমোদন নিয়ে কাজ শুরু করেছে।
সংসদে প্রতিমন্ত্রী জানান, বর্তমানে এক হাজার ১৬৬ মেগাওয়াট ক্ষমতার ১৪টা কুইক রেন্টাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র চালু আছে।

 

 

 

 

এখানে মন্তব্য করুন

আপনার ইমেইল জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না

*

You can use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>